করোনা পরিস্থিতিতে ৪ মাস ১৬ দিন বন্ধ রাখার পর খুলে দেওয়া হয়েছে গাজীপুরের শ্রীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক। প্রথম দিন দর্শনার্থীর সংখ্যা ছিল হাতে গোনা। গত বছরের মার্চ মাস থেকে পার্কটি বেশির ভাগ সময়ই বন্ধ ছিল।

পার্ক কর্তৃপক্ষ সূত্র জানায়, এ নিয়ে করোনা পরিস্থিতিতে দ্বিতীয় দফা পার্কটি দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে ৩ এপ্রিল থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক দর্শনার্থীদের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল।

দ্বিতীয় দফা খোলার প্রথম দিন শুক্রবার দুপুর ১২টায় সাফারি পার্কে গিয়ে দেখা যায়, মূল ফটকের বাইরে কিছু যানবাহন যাত্রী নামিয়ে দিচ্ছে। যাত্রীর সংখ্যা তুলনামূলক অনেক কম। মূল ফটকের বাইরে টিকিট কাউন্টারে কোনো ভিড় নেই। ভেতরে পাখিশালা ও কোর সাফারি অংশেও দর্শনার্থীর সংখ্যা হাতে গোনা। কোর সাফারির পরিদর্শন বাসগুলো ফটকের সামনে দর্শনার্থীর জন্য দাঁড়িয়েছে। অন্যান্য সময়ের মতো দর্শনার্থীদের লম্বা লাইন চোখে পড়েনি।

কোর সাফারির সামনে কথা হয় কয়েকজন দর্শনার্থীর সঙ্গে। এঁদের মধ্যে গাজীপুর বোর্ড বাজার থেকে আমিনুল ইসলাম তাঁর পরিবারের দুই সদস্য নিয়ে পার্কে ঘুরতে এসেছেন। তিনি বলেন, ‘গত রাতে হঠাৎ শুনলাম, সাফারি পার্ক খোলা। রাত ১১টায় সিদ্ধান্ত নিয়ে শুক্রবার চলে এলাম। অনেক দিন আমাদের কোথাও যাওয়া হয় না।’
ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার স্কয়ার মাস্টার বাড়ি এলাকা থেকে ইশতিয়াক হোসেন ও তাঁর স্ত্রী বন্য প্রাণী দেখতে এখানে এসেছেন। ইশতিয়াক বলেন, ‘এর আগে যখন এসেছি, তখন প্রচুর ভিড় ছিল। এবার লোকজন হয়তো পার্ক খোলার খবরটি জানতে পারেনি।’

কাপাসিয়া সদর থেকে ঘুরতে আসা নুসরাত জাহান বলেন, ‘এই প্রথম এসেছি। প্রথম দিন ভিড় কম হবে জেনেই বাচ্চাদের নিয়ে চলে এলাম।’

দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর গাজীপুরের শ্রীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক খুলেছে। প্রথম দিন শুক্রবার বাসে উঠছেন দর্শনার্থীরা। আজ দুপুরে তোলা ছবি
দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর গাজীপুরের শ্রীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক খুলেছে। প্রথম দিন শুক্রবার বাসে উঠছেন দর্শনার্থীরা। আজ দুপুরে তোলা ছবি প্রথম আলো
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও সহকারী বন সংরক্ষক তবিবুর রহমান বলেন, ‘প্রথম দিন দর্শনার্থীর সংখ্যা তুলনামূলক কম ছিল। কারণ, পার্ক খোলার সিদ্ধান্ত হয়েছে হঠাৎ করে। আশা করছি দ্বিতীয় দিন থেকে দর্শনার্থী বাড়বে। আমরা সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করেই পার্ক পরিচালনা করছি।’