অন লাইন ডেস্কঃ

ছবি: সংগৃহীত

স্বার্থের সংঘাত এড়াতে মোহনবাগানের পরিচালকের পদ থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন সৌরভ গাঙ্গুলী।খুব দ্রুতই তার পদত্যাগের ঘোষনা আসতে পারে বলে জানিয়েছেন মোহনবাগান ও লক্ষ্ণৌ ফ্র্যাঞ্চাইজির সত্ত্বাধিকারী সঞ্জীব গোয়েঙ্কা। তিনি আরও জানান, সৌরভের এমন সিদ্ধান্ত দৃষ্টান্ত হতে পারে অন্যদেরও।

আইপিএলের নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজি হতে ৭ হাজার ৯০ কোটি রুপির খরচায় লক্ষ্ণৌর দল কিনেছে আরপি-সঞ্জীব গোয়েঙ্কা গোষ্ঠী। তারা একই সাথে মোহনবাগানের মালিক সংস্থা। আইপিএল পরিচালনা করে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড আর সেই বোর্ডের সর্বোচ্চ পদে আছেন প্রিন্স অব ক্যালকাটা সৌরভ গাঙ্গুলী। তাই সৌরভের পক্ষে সঞ্জীবেরই কোনও দলের সঙ্গে যুক্ত থাকা তৈরি করতে পারে স্বার্থের সংঘাত। আর এই সংঘাত এড়াতেই মোহনবাগানের পরিভালক পদ থেকে সরে দাঁড়াতে পারেন সৌরভ, জানিয়েছেন সঞ্জীব গোয়েঙ্কা। লক্ষ্ণৌ ফ্র্যাঞ্চাইজির এই সত্ত্বাধিকারী বলেন, আমার মনে হয় সৌরভ মোহনবাগানের দায়িত্ব থেকে সরে যাচ্ছেন। এ বিষয়টি সৌরভকে ঘোষণা করতে হবে। দুঃখিত, আমার মনে হয় আমি আগেই বলে ফেললাম।

স্বার্থ সংঘাতে জড়িয়ে পড়ার ঘটনা এর আগেও ঘটেছে সৌরভের ক্ষেত্রে। ২০১৯ সালে সৌরভের বিরুদ্ধে ভারতীয় ক্রিকেটের একাধিক পদে থাকার অভিযোগ ওঠে। সেবার ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গলের সভাপতির দায়িত্বে থাকার পাশাপাশি আইপিএলের দল দিল্লি ক্যাপিটালসের উপদেষ্টা আর টিভি ধারাভাষ্যকার হিসেবে কর্মরত ছিলেন তিনি। এবার প্রশ্ন ওঠার আগেই সমাধানের পথে হেঁটে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে যাচ্ছেন ভারতের সফলতম অধিনায়ক।

ভারতে এমন ঘটনা শিক্ষা হতে পারে বাংলাদেশের জন্যও। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কর্তাদের ক্ষেত্রে একাধারে একাধিক পদে থাকার উদাহরণ আছে ভুরিভুরি। স্বার্থ সংঘাত এড়াতে মোহনবাগান থেকে সৌরভের পদত্যাগ হতে পারে বড় এক দৃষ্টান্ত।