শুক্র. মে ২০, ২০২২

নিজস্ব প্রতিনিধি,
নাসা নিউজ২৪।

নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লা মডেল থানায় এক নারী গণধর্ষণের অভিযোগ করলে অভিযুক্ত চার আসামি গ্রেপ্তার করে ফতুল্লা মডেল থানার পুলিশ।গত ২০ মার্চ আনুমানিক নয়টার সময় লাভলী আক্তার নামে গার্মেন্টস কর্মী বাসায় ফেরার পথে মাসদাইর কবরস্থান এলাকা হতে ব্যাটারি চালিত অটোতে উঠার পর তাকে স্প্রে দিয়ে অজ্ঞান করে অজ্ঞান করে নিয়ে যায় তারা ভক্তবলি একটি হাঁসের খামারের নিয়ে ,তিনজন মিলে রাতভর গণ ধর্ষণ চালায়।পরদিন সকালে মেয়েটিকে ছেড়ে দেয় তারা।আর একজন তাহাদেরকে সহযোগিতা করে।মেয়েটি অসুস্থ হওয়াতে গত ২১ মার্চ রাত ৮টার সময় এসে ফতুল্লা মডেল থানায় মেয়েটি অভিযোগ করে, অভিযুক্ত চার জন আসামির নামঃ

১/ আলমগীর হোসেন জনি (২৯) পিতা মৃত জয়নাল মিয়া, গ্রাম হাটি পাঁচিল থানা শাহজাদপুর জেলা সিরাজগঞ্জ।সে ফতুল্লায় পশ্চিম ইসদাইর বসবাস করত।২/মাহফুজুর রহমান মুন্না (২৬) পিতা আলমাছ ঢালী, পশ্চিম ইসদাইর গাবতলী ( দুহার ভিলা) থানা ফতুল্লা জেলা নারায়ণগঞ্জ।৩/মোঃ আব্দুল গাফফার (২৫) পিতাঃ মোঃ আব্দুল হাই গ্রাম পাঁচানি থান আড়াই হাজার নারায়ণগঞ্জ।সহযোগী একজনের নাম মোঃ শান্ত ( ২০) পিতা-মৃত মনু মিয়া গ্রাম বোনারপাড়া থানা শাহাটি জেলা গাইবান্ধা সে ফাতুল্লা পশ্চিম ইসদাইর গাবতলী এলাকায় বসবাস করত।তারা তিনজন সারারাত ধর্ষণ করার পর লাভলী আক্তার এর কাছে একটি মোবাইল ফোন ছিল যার মূল্য প্রায় ২০ হাজার টাকা মোবাইলটা রেখে সকালে লাভলী কে ছেড়ে দেয়।

পরে ফতুল্লা মডেল থানার উপ পরিদর্শক হুমায়ুন কবির বলেন যাদের নামে অভিযোগ করা হয়েছে তাদের কাছ থেকে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে এবং তারা ধর্ষণ করেছে তাও স্বীকার করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.